পিরিয়ড নিয়ে বাংলাদেশে প্রচলিত ট্যাবু গুলো কি কি?

June 20, 2021

পিরিয়ড নিয়ে বাংলাদেশে প্রচলিত ট্যাবু গুলো কি কি?

পিরিয়ড নিয়ে বাংলাদেশে প্রচলিত ট্যাবু গুলো কি কি?



আপনি জানলে মোটেও অবাক হবেন না যে একবিংশ শতাব্দীর ঠিক এই সময়টাতে দাঁড়িয়ে আজও পিরিয়ড এর মত নারীর এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টাকে সামাজিক ভাবে ট্যাবুর মধ্যে ডুবিয়ে রাখা হয়েছে। মানুষ শিক্ষিত হচ্ছে সমাজ বদলাচ্ছে কিন্তু পিরিয়ডকে এখনও আমরা নেতিবাচক চোখে দেখছি যেমনঃ
  • পিরিয়ড বা ঋতুস্রাব একটি নোংরা ও বিপদজ্জনক বিষয়।
  • পিরিয়ডকালীন সময়ে এখনও নারীদের ঠান্ডা ও টক খাবার খেতে দেয় না।
  • পিরিয়ড হওয়া মানে মেয়েটা বিয়ের জন্য উপযুক্ত।
  • পিরিয়ড নিয়ে প্রকাশ্যে আলোচনা করা একটা লজ্জাস্কর ব্যাপার!
  • এই সময়টায় মেয়েরা ভাব ধরে থাকে।
  • পিরিয়ড মানে হল একটা মেয়েলি ব্যাপার।
  • পিরিয়ড কালীন সময়ে মেয়েরা কোন কিছু ধরতে পারবে না, তাহলে তা নাপাক হয়ে যাবে!!
  • পিরিয়ডের সময় দুই তিন দিন চুল না ধোয়া।
  • পিরিয়ড না হলে সে সত্যকারের মহিলাই নয়।
আধুনিক এই পৃথীবিতে এখনও মানুষ এইরকম চিন্তা ভাবনা পোষণ করেন। এই ধরনের কুসংস্কার আমাদের সমাজে এখনও বিদ্যমান যার ফলে নারীস্বাস্থ্য বা নারীর মাসিক স্বাস্থ্যের মত একটা অতীব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আজও আমাদের সামাজিক ব্যবস্থায় অবহেলিত। আমাদের দেশে বেশিরভাগ স্কুল এর শিক্ষক তার শ্রেণী পাঠদান করার সময় এই বিষয়টা কেন জানি এডিয়ে যান। এবং বেশির ভাগ বয়ঃসন্ধি সময় অতক্রম করা মেয়েরা এখনও ভালো করে পিরিয়ড নিয়ে পর্যাপ্ত জ্ঞান থেকে বঞ্চিত।
পিরিয়ডের মতো জরুরি বিষয় নিয়ে লজ্জা, ট্যাবু না রেখে সন্তানের সঙ্গে সরাসরি কথা বলতে হবে। সন্তান বয়ঃসন্ধিতে এলেই পিরিয়ড নিয়ে কথা বলা শুরু করা প্রত্যেক বাবা মায়ের কর্তব্য ৷ শরীরিক পরিবর্তন, পিরিয়ড কেন হয়, সেই বিষয়ে বৈজ্ঞানিকভাবেই স্পষ্ট ধারণা দিন সন্তানকে।

পিরিয়ড নিয়ে বিজ্ঞান আমাদের কি ধারণা দিচ্ছে?


আসুন জেনে নেই পিরিয়ড নিয়ে বিজ্ঞান আমাদের কে কি বলে? পিরিয়ড বা মাসিক হচ্ছে নারীদের যোনিপথের মাধ্যমে জরায়ুর অভ্যন্তরীণ আস্তরণ থেকে রক্ত এবং মিউকোসাল টিস্যু (মেনসিস নামে পরিচিত) এর নিয়মিত স্রাব যা নারীর শরীর থেকে প্রতি মাসেই রক্ত এবং টিস্যু বের হয়ে যায় এবং এটি গড়ে ৩ থেকে ৫ দিন থাকে । এটি আল্লাহ প্রদত্ত নারিদেহের একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া।

পিরিয়ড চলাকালীন মেয়েদের চেহারায় বিরক্তিভাব, পিরিয়ড এর পূর্বে এবং পিরিয়ড চলাকালীন সময়ে ব্যথা ও দুর্বলতা দেখা দেয়। এই সময়টাতে মেয়েরা দুশ্চিন্তাগ্রস্থ ও মানসিক অবসাদ এ ভুগেন। এ সময়ে খাদ্য তালিকা পুষ্টিকর ও সুষম খাবার রাখা খুব জরুরি। প্রয়োজনে ডাক্তার/ পুষ্টিবিদ এর পরামর্শ নিয়ে অর্গানিক ফাংশনাল ফুড গ্রহন করা যেতে পারে।

পিরিয়ড কি এডিয়ে যাওয়ার মত বিষয়?


পিরিয়ড কোন ভাবেই এডিয়ে যাওয়ার মত বিষয় নয়। এটি নারীদেহের একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। পিরিয়ড নারীর অহংকার করবার মত একটা বিষয়। নারীর পিরিয়ড হয় বিধায় নারী মা হয় সন্তান জন্ম দান করে, আমি আপনি আমরা সবাই এই প্রসেস এর মাধ্যমেই পৃথিবীতে এসেছি । আল্লাহ্ পাক সেই জন্যই নারীর মর্যাদা বেশি দিয়েছেন। পিরিয়ড নিয়ে আমাদের সবার কথা বলা উচিত। পরিবার থেকেই এই চর্চা শুরু হওয়া উচিত। লজ্জা নয় বরং নিরাবতা ভেঙ্গে পিরিয়ড নিয়ে কথা বললেই জন সচেতনতা তৈরি হবে।

Leave a comment

Comments will be approved before showing up.

Subscribe